ইউটিউব চ্যানেল ভেরিফাই করার নিয়ম এখনি জানুন

আজকে আমরা আপনাদের শিখাবো যে কিভাবে আপনারা  আপনাদের 

ইউটিউব চ্যানেল কি ভেরিফাই করে নিতে পারবেনঅনেকেই আছেন যারা ইউটিউব চ্যানেল ভেরিফাই করতে পারেনা আর

 যার জন্য তাদেরকে বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়।

ইউটিউব চ্যানেল ভেরিফাই করার নিয়ম


কিন্তু আপনাদের চিন্তার কোন কারণ নেই কেননা  আমাদের এই আজকের আর্টিকেলের ভিতরে আপনাদের সাথে শেয়ার করব যে কিভাবে আপনারা খুব সহজেই আপনাদের মোবাইল ফোন দিয়ে আপনাদের ইউটিউব চ্যানেল কি ভেরিফাই করে নিতে পারবেন। 

কিভাবে ইউটিউব চ্যানেল ভেরিফাই করবেন সেটি তো আপনাদের অবশ্যই বলব কিন্তু তার আগে আপনাদের কিন্তু এটা জানা দরকার যেকেন আপনার  ইউটিউব  চ্যানেলটি ভেরিফাই করবেন। 

আর আপনারা যদি আপনাদের ইউটিউব চ্যানেল কি ভেরিফাই না করেন তাহলে সে ক্ষেত্রে আপনারা কি কি সুবিধা থেকে বঞ্চিত হবেন বা কি কি ফিচার  আপনারা উপভোগ করতে পারবেন না  

এইগুলো আপনাদের আগে জেনে নেওয়া উচিত কারণ কোন কিছু করার আগে সেই বিষয়ে কেন করবেন এই বিষয়টা আপনাদের জানাবো অবশ্যই দরকার  

আর তাই এই বিষয়টা আপনারা সবার আগে জেনে নিন তার পর আমি আপনাদেরকে বলবো যে কিভাবে আপনারা ইউটিউব চ্যানেলে নাম্বার দিয়ে  অর্থাৎ ফোন নাম্বার দিয়ে ভেরিফাই করে নিতে পারবেন খুব সহজেই।  

অনেক সময় দেখা যায় যে আপনারা  অনেক মানুষের কাছে জিজ্ঞেস করেন কিন্তু কোনো সমাধান পান না আবার অনেক ইউটিউব চ্যানেলের ভিডিও দেখে তার  নিচে আপনারা কমেন্ট করেন কিন্তু তারপর   দেখা যায় যে অনেক ইউটিউবার রয়েছে যারা প্রচুর পরিমাণে কমেন্ট আসার কারণে সবার কমেন্টের উত্তর দিতে পারেন  

আর হয়তোবা দেখা যায় যে আপনার কমেন্টের উত্তর দেওয়া তাদের পক্ষে সম্ভব হয় নাআর আপনারা তার জন্য কিন্তু বিষয়টি  জানেনও না   আর তাই আমি আপনাদের এখন বলব কেন আপনার আপনাদের ইউটিউব চ্যানেল কি ভেরিফাই করবেন , আর ভেরিফাই না করলে কি কি সুবিধা থেকে বঞ্চিত হবেন সেই বিষয় সম্পর্কে 

সবার প্রথমে আপনি আপনার ইউটিউব চ্যানেলের কাস্টম থাম্বেল রয়েছে সেই কাস্টম থাম্বেল  ব্যবহার করতে পারবেন না কখনো। ভিডিও বানানোর সময় আপনার ভিডিওর উপরে যে আলাদা করে একটা ছবি দেওয়া থাকে আপনারা  প্রায়  সময়তে দেখতে পারবেন যে ইউটিউব চ্যানেলের ভিডিও গুলোতে কাস্টম থাম্বেল দেওয়া থাকে। 

আর আপনি যদি আপনি ইউটিউব চ্যানেল ভেরিফাই না করেন। তাহলে সেক্ষেত্রে কিন্তু আপনার কাস্টম থাম্বেল কখনো ব্যবহার করতে পারবেন না, বিষয়টা আপনাদের মনে রাখতে হয়।  

Read More -লাভজনক ব্যবসার আইডিয়া জেনে নিন


দ্বিতীয় নাম্বারে রয়েছে  যেটা  সেটা  হচ্ছেআপনি আপনার ইউটিউব চ্যানেলে 15 মিনিটের কোন অধিক ভিডিও বানাতে পারবেন না । অর্থাৎ যে ভিডিও আপনি বানান না কেন সেটা 15 মিনিটের বেশি কোন হতে পারবেনা 15 মিনিটের ভিতর হতে হবে বা  তার কম সময়ের ভিতর আপনাকে একটি ভিডিও বানিয়ে তারপর আপলোড করতে হবে   

15 মিনিটের  বেশি কোন ধরনের ভিডিও আপনার ইউটিউব চ্যানেলে আপলোড করতে পারবেন না যদি  আপনার ইউটিউব চ্যানেল ভেরিফাই করে না থাকে তাহলে আপনারা  কখনোই  15 মিনিটের  বেশি ভিডিও আপলোড করতে পারবেন না  

যদি আপনার মোবাইল নাম্বার দিয়ে অর্থাৎ আপনাদের মোবাইল ফোন নাম্বার দিয়ে যদি আপনাদের ইউটিউব চ্যানেল কি ভেরিফাই করে না থাকে তাহলে সে ক্ষেত্রে কিন্তু আপনি 15 মিনিটের অধিক কোন ভিডিও ইউটিউবে আপলোড করতে পারবেন না

আর তিন নাম্বারে রয়েছেআপনারা কিন্তু আপনাদের ইউটিউব চ্যানেলটি যদি  ভেরিফাই না করেন তাহলে সে ক্ষেত্রে কিন্তু আপনারা লাইভ স্ট্রিম  করতে পারবেন না   অর্থাৎ আপনারা আপনাদের ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমে লাইভে আসতে  পারবেন না   অনেক সময় দেখা গেল যে আপনার লাইভ  করা দরকার , আর তখন যদি আপনাদের ইউটিউব চ্যানেল কি ভেরিফাই করে না থাকে তাহলে সে সময় কিন্তু আপনারা চাইলে  লাইভ করতে পারবেন না।  

নাম্বারে যে বিষয়টি রয়েছে সেটা হল  কনটেন্ট আইডি নেওয়ার জন্য কি  Claim  করতে পারবেন না।   

তার উপরে আমি যে চারটি বিষয়ের কথা বললাম এই চারটি বিষয়ে যদি আপনারা আপনাদের ইউটিউব চ্যানেল থেকে পেতে চান অর্থাৎ এই সুবিধা গুলো যদি পেতে চান তাহলে সেক্ষেত্রে অবশ্যই কিন্তু আপনাদেরকে  আপনাদের ইউটিউব চ্যানেলটি ফোন নাম্বার দিয়ে ভেরিফাই করে নিতে হবে।  আপনারা যদি ভেরিফাই না করেন তাহলে সে ক্ষেত্রে কিন্তু এই সমস্ত সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হবেন।  

এই সমস্ত সুযোগ সুবিধা গুলো আপনারা কখনোই পাবেন না যদি না আপনারা আপনাদের মোবাইল ফোন নাম্বার দিয়ে আপনাদের ইউটিউব চ্যানেল কি ভেরিফাই করেন   

তাহলে আসুন এবার জেনে  নেন , যে কিভাবে আপনারা একদম নতুন পদ্ধতিতে আপনাদের ইউটিউব চ্যানেল কি ভেরিফাই করে নিতে পারবেন খুব সহজেই   

আর আপনারা ইউটিউব চ্যানেল টি ভেরিফাই করার জন্য কিন্তু আপনাদের মোবাইল  ফোন টি হাতে নিতে হবে আর তারপরে আপনাদেরকে  ইউটিউব অ্যাপস এর ভিতর না,আপনাদেরকে যেটা করতে হবে সেটা হচ্ছে আপনাদের কে  আপনাদেরকে  সবার প্রথমে ক্রোম ব্রাউজারে প্রবেশ করতে হয়। তারপরে আপনাদেরকে সার্চ বারে সার্চ করতে হবে youtube.com লিখে  

আর আপনারা যদি মোবাইল দিয়ে করেন তাহলে সেক্ষেত্রে আপনাদেরকে যে কাজটি করতে হবে সেটা হল আপনাদের মোবাইল এর ডান পাশে দেখতে পারবেন যে কতগুলো অপশন রয়েছে, সেখান থেকে আপনাদেরকে ডেক্সটপ  ভার্সন করে নিতে হবে আপনাদের মোবাইল থেকে। 

আর তারপর আপনাদেরকে যে কাজটি করতে হবে সেটা হল ,আপনাদেরকে Your Channel নামে একটি অপশন পাবেন সেই অপশনটিতে আপনাদেরকে ক্লিক করে লাগবে। 

আর তারপরে আপনারা কাস্টম চ্যানেল নামে একটা অপশন দেখতে পারবেনআর তার সাথে দেখতে পারবেন Manage Channel নামে একটি অপশন আপনাদেরকে যে কাজটি করা লাগবে সেটা হল কাস্টমাইজ চ্যানেল এই অপশনটিতে ক্লিক করতে হবে  

আর এক্ষেত্রে আপনাদের একটি বিষয় মনে রাখতে হবে যদি আপনাদের ইউটিউব স্টুডিও  যে মোবাইলের  অ্যাপস রয়েছে সেই এপ টি যদি আপনাদের মোবাইলে ইন্সটল করা থাকে তাহলে সে ক্ষেত্রে সেই অ্যাপস এর ভিতর আপনাদের জিমেইল একাউন্টে লগইন করা থাকতে হবে 

আর আপনারা ক্রোম ব্রাউজার থেকে যখন কাস্টম  চ্যানেল ক্লিক করবেন তখন আপনারা সবগুলো অপশন দেখতে পাবেন আপনাদের ইউটিউব চ্যানেলের অর্থাৎ ইউটিউব চ্যানেলে যতগুলো সেটিং- আছে সব অপশন গুলো আপনারা দেখতে পারবেন খুব সহজেই   

Read More - মহিলাদের জন্য ১০টি লাভজনক ব্যবসার আইডিয়া

আজ আপনাদেরকে যে কাজটি করতে হবে এখন সেটা হল  আপনারা সেটিংস নামে একটি অপশন দেখতে পারবেন সেই অপশনটিতে আপনাদেরকে ক্লিক করতে হবে সেটিংস ক্লিক করার পর আপনার দেখতে পারবেন যে জেনারেল , চ্যানেল , কমিউনিটিআরো অনেকগুলো বিষয় আপনারা এখানে দেখতে পারবেন   

আর এখান থেকে আপনাদেরকে যেটাতে ক্লিক করতে হবে সেটা হল চ্যানেল লেখাটির উপরে ক্লিক করতে হবে। চ্যানেল লেখাটির উপর ক্লিক করার পর আপনার দেখতে পারবেন যে Basic Info, Advanced Sitting, Feature eligibility নামে একটি অপশন পাবেন, Feature eligibility অপশনটিতে আপনাদেরকে ক্লিক করতে হবে।

এইখানে ক্লিক করার পরে আপনার দুই নাম্বার একটা অপশন দেখতে পারবেন সেখানে লেখা থাকবে 2. Intermediate features এই অপশনটি  এর ভিতর আপনাদেরকে ক্লিক করতে হবে। 

আর বামপাশে আপনারা লেখা দেখতে পারবেন যে লেখা রয়েছে কতগুলো অপশন সেগুলো নিচে দেওয়া হল

·        Videos longer than 15 minutes

·        Custom thumbnails

·        Live streaming

·        Appealing Content ID claims

 

এই অপশন গুলো যদি আপনারা আপনাদের ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমে সুবিধা ভোগ করতে চান  অর্থাৎ এই সুবিধাগুলো আপনাদের ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমে সবসময় উপভোগ করতে চান তাহলে সেক্ষেত্রে আপনাদেরকে অবশ্যই আপনাদের মোবাইল ফোন নাম্বার দিয়ে  আপনাদের ইউটিউব চ্যানেল টি ভেরিফাই করতে হবে   

ভেরিফাই করার জন্য আপনাদেরকে Verify Your Phone Namber এই অপশনটিতে ক্লিক করতে হয়  আর তারপরে  আপনারা  ভেরিফাই করার জন্য অপশন পেয়ে যাবেন   আপনাদের কাছে জানতে চাওয়া হবে যে আপনারা কিভাবে ভেরিফাই করতে চান অর্থাৎ মোবাইল ফোনে এসএমএস যাবে না ইউটিউব থেকে কলের মাধ্যমে আপনাকে কোড জানিয়ে দেওয়া হবে সেটা আপনাদের কাছে জানতে চাওয়া হয়  

আপনারা আপনাদের মোবাইল ফোন নাম্বারটি বসানোর পর Get Code নামে একটি অপশন পাবেন, সেখানে আপনাদেরকে ক্লিক করতে  হবে   আর তারপরে আপনাদের মোবাইল ফোনে একটি কোড যাবে তারপরে আপনাদের সেই কোডটি এখানে বসিয়ে দিলেই আপনাদের ইউটিউব চ্যানেল কি ভেরিফাই হয়ে যাবে   

আর আপনারা যদি মোবাইল ফোনে কোড না পাঠিয়ে মোবাইল ফোনে কল আসার মাধ্যমে যদি চান যে কল আসবে কল করে code  জানিয়ে দেবে তাহলে সে ক্ষেত্রে আপনারা Call me with an automated voice message  এই অপশনটির  উপরে টিকমার্ক দিবেনআর তারপরে  আপনারা Get code এই লেখাটির উপরে  ক্লিক করবেন তাহলে আপনাদের মোবাইল ফোনে কল করে আপনাদের কোডটি জানিয়ে দেওয়া হবে  

আর আপনারা যদি চান যে আপনাদের মোবাইল ফোনে এসএমএসের মাধ্যমে করতে আসবে তাহলে সে ক্ষেত্রে আপনারা  প্রথম যে অপশনটি থাকবে অর্থাৎ , Text me the verification code এই লেখাটির উপরে ক্লিক করে আপনাদের মোবাইল ফোন নাম্বারটি বসিয়ে  তারপরে , 

আপনার  নেক্সট বাটনে ক্লিক করলেই আপনাদের মোবাইলে একটি কোড যাবে  সেই কোডটি আপনারা এখানে বসিয়ে দিলে আপনাদের ইউটিউব চ্যানেল কি ভেরিফাই হয়ে যাবে  সঠিকভাবে   

আর আপনাদের ইউটিউব চ্যানেল কি ভেরিফাই হয়ে যাওয়ার পরে আপনারা  একটি নোটিশ পাবেনঅর্থাৎ একটি এসএমএস পাবেন যে এসএমএস দিতে লেখা থাকবে যে আপনারা সাকসেসফুল ভাবে আপনাদের ইউটিউব চ্যানেল কি ভেরিফাই করতে  পেরেছেন

Phone Number Verified , Congratulations! Your phone number is now verified. এরকম এর একটি লেখা আপনারা দেখতে পারবেন আপনাদের ইউটিউব চ্যানেল কি ভেরিফাই হয়ে যাওয়ার পরে।  

আর তারপরে যদি আপনারা Intermediate features এইখানে যান তার পরের আপনারা দেখতে পারবেন যে আপনাদের মোবাইল ফোন নাম্বারটি সঠিকভাবে ভেরিফি করা হয়ে গেছে , এখানে আপনারা দেখতে পারবেন লেখা রয়েছে Enabled এরকম এর একটি লেখা দেখতে পারবেন যেটা আগে থাকবে  না  ভেরিফাই করার আগে   

আমাদের শেষ কথা 

আশা করি যে আপনারা বুঝতে পেরেছেন যে কি কারনে আপনার আপনাদের ইউটিউব চ্যানেল কি ভেরিফাই করবেন এবং আপনারা  ভেরিফাই করলে কি কি সুবিধা পাবেন এবং ভেরিফাই যদি না করেন ,তাহলে কি কি সুবিধা থেকে বঞ্চিত হবেন সেই সমস্ত বিষয়গুলি সম্পর্কে কিন্তু,আপনারা আশাকরি জানতে পেরেছেন আমাদের আজকের  এই লেখার মাধ্যমে 


Read More - ইনস্টাগ্রাম মার্কেটিং কিকেন কিভাবে করতে হয়জেনে নিন 


তার পরে কিভাবে ভেরিফাই করতে হয় সেই বিষয়ের সম্পর্ক কিন্তু আপনাদের সাথে আজকে বিস্তারিত সকল তথ্য আলোচনা করলাম

এই রকমের টেকনোলজি বিষয়ক বিভিন্ন টিপস এন্ড ট্রিক্স পেতে আমাদের ওয়েবসাইটে প্রতিদিন ভিজিট করুন এরকম নতুন নতুন তথ্য আমাদের ওয়েব সাইটে প্রতিদিনই  প্রকাশ করা হয়ে থাকে  

Admin

আমি একজন স্টুডেন্ট , বর্তমানে একাউন্টিং বিষয় নিয়ে অনার্স করতেছি, আর তার সাথে সাথে লেখালেখি করি। ফ্রী সময় যখন হয় তখন আমি যে বিষয়গুলো জানি সেই বিষয়গুলো সম্পর্কে আপনাদেরকে একটু আইডিয়া দেওয়ার চেষ্টা করি এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে।

Post a Comment

Previous Post Next Post